Posts

Showing posts from November, 2018

ads

ad

'Historical Kāvya -- the most weak point of Sanskrit literature`

'Historical Kāvya -- the most weak point of Sanskrit literature`
             সাধারণভাবে আমরা ইতিহাস বলতে যা বুঝি প্রাচীন ভারতবর্ষে সেইরকম ইতিহাস ছিল না। বর্তমানযুগে ইতিহাসকে History-সমার্থকরূপেধরাহয়।The Columbia Encyclopaedia-তেবলাহয়েছে History in its broadest sense, is the story of man's past. More specially it means the record of that past not only in chronicles and treaties on the past, but in all sorts of forms.’ প্রাচীনভারতেইতিহাসশব্দটিঅনেকব্যাপকঅর্থেপ্রযুক্তহয়েছে।ঋগ্বেদোপোদ্ঘাতেবলাহয়েছে— দেবাসুরাঃসংযত্তাআসন্নিত্যাদয়ঃইতিহাসঃ’ নিরুক্তেবলাহয়েছে—নিদানভূতইতিহএবমাসীদ্ইতিযউচ্যতেসইতিহাসঃ

কথাকাব্য (Tales & Fables), পঞ্চতন্ত্র ও হিতোপদেশ

কথাকাব্য(Tales& Fables),পঞ্চতন্ত্রহিতোপদেশ
               সংস্কৃতে গল্পকে বলা হয় কথা। এর দুটি ভাগ—এক শ্রেণীর গল্প মানুষ, দৈত্যদানব প্রভৃতি সম্পর্কিত এবং অন্য শ্রেণীর গল্পগুলি পশুপক্ষী সম্পর্কিত। মানুষ, দৈত্যদানব প্রভৃতি সম্পর্কিত কল্পনাময় কাহিনীগুলিকে ইরেজিতে বলা হয় Tales.সমাজেরবিভিন্নস্তরেরমানুষেরব্যবহার, কার্যকলাপপ্রভৃতিবিভিন্নপশুপক্ষীরউপরআরোপকরেরচিতগল্পগুলিকেইরেজিতে বলা হয় Fables. ব্যাবহারিকজীবনেরউপযোগীনীতি-উপদেশদানইএরলক্ষ্য।Fables সম্বন্ধেKeith বলেছেন--The fable, indeed, is essentially connected with the two branches of science known by Indians as the Nītiśāastra and the Arthaśāstra, which have this in common as opposed to the Dharmaśātra that they are not codes of morals, but deals with man's action in practical politics and conduct of the ordinary affairs of everyday life and intercourse.
সংস্কৃতসাহিত্যেরউল্লেখযোগ্যTales
সোমদেবেরকথাসরিৎসাগর,শিবদাসের বেতালপঞ্চবিংশতি, চিন্তামণি ভট্টের শুকসপ্ততি, বিদ্যাপতির পুরুষপরীক্ষা,

সংস্কৃত নাটকের উৎপত্তি-বিষয়ক মতবাদ (Various theories on the origin of Sanskrit drama.)

সংস্কৃতনাটকেরউৎপত্তি-বিষয়কমতবাদ(Various theories on the origin of Sanskrit drama.)
সংস্কৃত নাটকের উৎপত্তির ইতিহাস আজও রহস্যাবৃত।প্রাচীন ভারতের কোন যুগে সংস্কৃত নাটকের উৎপত্তি হয়েছিল সেই প্রশ্নের আজও কোন যুক্তিসঙ্গত উত্তর পাওয়া যায় নি।প্রাচীন নাট্যতাত্ত্বিক, আধুনিক প্রাচ্য ও পাশ্চাত্ত্য পণ্ডিতগণ সংস্কৃত নাটকের উৎপত্তি বিষয়ে যে সব সিদ্ধান্তে এসেছেন তাতে মূল দুটি চিন্তাধারা প্রতিফলিত হয়েছে—একটিধর্মানুষ্ঠান-কেন্দ্রিক এবং অন্যটি লৌকিক অনুষ্ঠান সম্পর্কিত। নীচে সেই মতবাদগুলি আলোচিত হল।
দৈব উৎপত্তি মতবাদ— ভরতের নাট্যশাস্ত্রে বর্ণিত নাটকের উৎপত্তি সম্পর্কে মতবাদকে দৈব উৎপত্তিবাদ বলা হয়। এই মতবাদ অনুসারে দেবরাজ ইন্দ্র দর্শন ও শ্রবণের আনন্দ বিধানের জন্য একখানি পঞ্চমবেদ সৃষ্টির আবেদন নিয়ে ব্রহ্মার কাছে যান। ব্রহ্মা সেই অনুরোধ রক্ষার্থে ঋগ্বেদ থেকে সংলাপ, সামবেদ থেকে গান, যজুর্বেদ থেকে অভিনয় এবং অথর্ববেদ থেকে রস সংগ্রহ করে নাট্যবেদ তৈরি করলেন। সেই বিষয়ে নাট্যশাস্ত্র বলা হয়েছে— ‘জগ্রাহ পাঠ্যমৃগবেদাত্‌ সামভ্যো গীতমেব চ। যজুর্বেদাদভিনয়ান্‌ রসানাথর্বণাদপি’।। শিব-পার্বতী দান করলেন তাণ্ডব ও লাস্য নৃত্য, বিষ্…

Ads